অনূদিত কবিতা : বাংলা-অনুবাদ প্রসঙ্গ : শাহানা কায়েস

অনূদিত কবিতা

বাংলা-অনুবাদ প্রসঙ্গ

শাহানা কায়েস

‘মিরর স্যান্ড’ নামক এই কবিতা-সংকলনটি ইন্টারনেট হয়ে হাতে এসে পৌঁছায় কোভিড কালে। দমবন্দ্ব জীবনের আড়ষ্টতা-স্থবিরতা তাড়ানোর উপায় হিসেবে পৃষ্ঠা উল্টে যাই। নিজে কবি নই, কিন্তু সংকলনের বাক্য শব্দ ক্রমশ আচ্ছন্ন করতে শুরু করে। বাংলা ভাষায় ওই অনুভবের প্রতিস্থাপন, আমার এই অক্ষম প্রচেষ্টার স্মারক হয়ে রইল। গ্লাগোস্লাভ নামক প্রকাশনা থেকে এই গ্রন্থটি বেরোয় ২০১৮ সালে। গত অর্ধশতকের ত্রিশজন রুশ কবির কবিতা এই গ্রন্থে প্রকাশিত হয়েছে। সম্পাদক―অনুবাদক আনাতোলি কুদরিয়াভিটস্কি নিজেও একজন প্রথিতযশা কবি, যাঁর লেখাপত্র অনূদিত হয়েছে প্রায় ১৪টি ভাষায়। ১৯৫৪তে কবি আনাতোলি মস্কোতে জন্মগ্রহণ করেন। অধ্যয়ন করেছেন চিকিৎসা বিজ্ঞানে এবং গবেষণা করেছেন ইমিউনোলজি বিষয়ে। উপন্যাস, গল্প, কবিতা মিলিয়ে তাঁর বিবিধ প্রকাশনা। ১৯৮৮ পর্যন্ত সোভিয়েত ইউনিয়নে ছিলেন নিষিদ্ধ। এখন বসবাসরত আয়ারল্যান্ডে। সম্পাদনা করছেন ‘সারভিশন’ নামক নতুন পরাবাস্তববাদী কবিতা পত্রিকা এবং সামরক নামক আন্তর্জাতিক হাইকু ম্যাগাজিন।

মিখাইল ফিনারম্যান

নিজেকে পাওয়া
নিজের নিজেকে পেতে
বাতাসের অরণ্যে হারাও
একা,
বাতাসে …

জেনাদি আলেক্সেইভ্

প্রতিটি ভোর
প্রতিটি ভোরে
চোখের কবাট খুলে
জানালার মুখোমুখি হই
তারপর জানালা দিয়ে দূরের ওই অপার আকাশ।

প্রতিটি ভোর
আমাকে মনে করিয়ে দেয়
আমি পাখি নই।

দিমিত্রি গ্রিগোরিয়েভ

জেলে
জেলেরা ফিরে এল শূন্যহাতে।
জেলেরা বলল,
জল অনেক উঁচুতে আর উত্তাল।

জেলেরা ফিরে এল―
আর বৃষ্টির ফোঁটার মতো ছলকে ছড়িয়ে গেল
জেলেরা বলল,
কাদা ভাসছে পুরো নদীজুড়ে,
যেজন্য মাছেরা সব চলে গেছে।

কিন্তু আমরা আবারও নদীতেই ফিরে যাব
আমাদের কাপড় শুকানোর আগেই

ইভান আখমেতিয়েভ

পর্যবেক্ষণ
তুমি আরও বেশি কিছু দেখতে পাবে
যদি গতিহীন অকুস্থলে দাঁড়াও
হতে পারে সেটা পুরো শীতকাল
গ্রীষ্ম
রাত
দিন―
বারান্দার পুরোনো সেই ট্রাংকটির মতো।

আর্ভো মেটস

প্রতিচ্ছায়া
সব তরুণী
প্রকরণে এক
আকাশ,
বাতাস,
মেঘ বা আরও বেশি কিছু।

একসময় তারা পরিণত হয়
একান্ত স্ত্রীরূপে
যাদের মুখ শুধু মনে করিয়ে দেয়
বাড়ি,
আসবাবপত্র,
আর বাজারের ব্যাগের কথা।

এরপরও তাদের কন্যাদের
অবয়বে ভাসে
সেই আকাশ, বাতাস
এবং বসন্তকালের স্রোতধারা।

আর্কাদি ত্যুরিন

সে
আমি ছিলাম মেয়েটির বন্ধু
কিন্তু সে আমাকে ছেড়ে গেল
একজন প্রভুর খোঁজে

আনাচতালি কুদরায়াভিটস্কি

অদৃশ্য সিনেমা
আমার নাম ঠিকানার পৃষ্ঠায়
একটু সবুজ মুভি:
ঘরবাড়ি ভেঙে পড়ছে
লোকজন যাচ্ছে নির্বাসনে
হচ্ছে মৃত্যুমুখী।

একজন বহিরাগতর চোখে
এগুলো শুধুই কিছু নাম
এবং সংখ্যা

আর্ভো মেটস

কবি
কবি স্প্যাগেটির জন্য লাইনে দাঁড়িয়ে
তার মহিলা ভক্তও সেখানে।
কবি সামান্য লজ্জিত:

কিন্তু যখন তিনি মঞ্চে উপবিষ্ট,
তখন তিনি ছোট্ট রাজপুত্র।
তখন তার চোখে মুখে ক্ষুধার লেশমাত্র নেই।

রুসলান গালিমভ

পূর্বাভাষ
আজ ডুসানবেতে খুব বৃষ্টি
অথবা হতে পারে
হঠাৎ কোনও এক নারী আমাকে ভেবেছে।
তার আয়ত চোখ দুটি
আটকে আছে রাস্তায়, যেখানে
ফেরা হবে না আর কোনওদিন।

১০

রুসলান গালিমভ

সে ছিল সঠিক
বহু বছর ধরে আমি জানতাম
আমার পা দুটো সোজা
এবং কাঁধ প্রশস্ত।

একদিন এক ক্ষুদ্র মহিলা
আমার মুখের দিকে তাকিয়ে হাসল
বলল যে আমার পা ধনুকের মতো বাঁকা
এবং আমি ঝুঁকে হাঁটি।

তার এই পর্যবেক্ষণে আমি মুগ্ধ
কারণ মোটাদাগে সে ছিল সঠিক
তারপর থেকে আমি কখনও আর
পোশাক ছাড়া তার মুখোমুখি হইনি

সচিত্রকরণ : নাজিব তারেক

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You may have missed

shares