শব্দঘর মার্চ – এপ্রিল ২০২১

আমাদের সমালোচনা-সাহিত্য বিকশিত হোক

সাহিত্য-বিশ্লেষণ, সাহিত্য-সমালোচনা, সমালোচনা-সাহিত্য অথবা বিশ্লেষণ-সাহিত্য আমাদের দেশে গড়ে ওঠেনি। এ বিষয়ে যাঁরা ক্ষুরধার ভূমিকা রেখেছিলেন একসময় তাঁরাও নিজেদের গুটিয়ে নিয়েছেন। অধিকাংশ লেখক প্রকৃত সমালোচনা গ্রহণ করতে পারেন না। সমালোচক বা বিশ্লেষককে তাঁরা বিরুদ্ধপক্ষ ভাবতে শুরু করেন। নেতিবাচকভাবে মূল্যায়ন করেন। ফলে সমালোচনা-সাহিত্য গড়ে ওঠেনি আমাদের দেশে। অথচ যে কোনও আলোচনা বা সমালোচনা বা বিশ্লেষণ যে কোনও সাহিত্যের ভুলত্রুটিগুলো সামনে তুলে ধরে। তখন ঘাটতিগুলো শোধরানোর পথ খুঁজে পাওয়া যায়, লেখকের লেখার মান বা শিল্পশৈলীর উত্তরণ ঘটানো যায়। অথচ তা ইতিবাচকভাবে গ্রহণ করতে পারি না আমরা। এ হীন দৃষ্টিভঙ্গির কারণে সমালোচনা-সাহিত্য গড়ে ওঠেনি বাংলাদেশে।

এ বিষয়ে শব্দঘর-এর পক্ষ থেকে কাজ শুরু করেছি। এ সংখ্যা থেকে তার উদ্যোগ নিয়েছি। অনেক ঝুঁকি মাথায় নিতে হবে জেনেও এ পথে নেমেছি। চাই : লেখকেরা ইতিবাচকভাবে এ উদ্যোগকে স্বাগত জানাবেন, গ্রহণ করবেন।

শব্দঘর গল্পসংখ্যায় (২০২০) প্রকাশিত অধিকাংশ গল্পের বিশ্লেষণ উপস্থাপন করেছি এ সংখ্যায়। বিশেষ কারণে, প্রকাশিত কয়েকটি গল্প আলোচনায় রাখা হয়নি; সমালোচনার ঊর্ধ্বে রেখেছি।

এ সংখ্যা থেকে উপদেষ্টা হিসেবে শব্দঘর-পরিবারে যোগ দিয়েছেন রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ-এর উপাচার্য অধ্যাপক বিশ্বজিৎ ঘোষ। তিনি লিখেছেন ‘ছোটগল্পের শিল্পরূপ’ নিয়ে প্রধান প্রচ্ছদ রচনা। তাঁর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি। থাকছে রবীন্দ্রগল্পের মনস্তত্ত্ব নিয়ে মোহিত কামালের বিশ্লেষণ।

শব্দঘর গল্পসংখ্যায় প্রকাশিত গল্পগুলো বিশ্লেষণ/আলোচনা করেছেন এ প্রজন্মের চারজন উদ্যমী, সাহিত্য-আলোচক, সাহিত্য-বিশ্লেষক। এদের মধ্যে দুজন আছেন একদম নবীন। তাঁদের  অগ্রযাত্রাকে স্বাগত জানাই। তাঁরা হলেন : উৎপল দত্ত, হামিদ কায়সার, জাকিয়া রহমান ও সালমা আক্তার।

এছাড়াও স্বাধীনতা দিবস ২০২১ উপলক্ষে বিশেষ প্রবন্ধ পাঠিয়েছেন মেজর জেনারেল (অব.) ইমাম-উজ-জামান বীর বিক্রম। ঢাকা মেডিকেল কলেজকে স্বাধীনতা পুরস্কার দেওয়ার যৌক্তিক কারণসহ দাবি উত্থাপন করে লিখেছেন অধ্যাপক ডা. এস এম মোস্তফা জামান। আর বিশ্ব বই দিবস ২০২১ উপলক্ষে লিখেছেন প্রাবন্ধিক হোসেন আবদুল মান্নান। আরও থাকছে বিশ্ব বই দিবস উপলক্ষে সময় প্রকাশনের স্বত্বাধিকারী, লেখক ফরিদ আহমেদের আনিসুল হকের মা উপন্যাসের শততম মুদ্রণের কাহিনি।

বিশ্ব বই দিবস উপলক্ষে শব্দঘর নতুন পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। প্রতিবছর একটি বইকে ‘মর্যাদাপূর্ণ বই’ হিসেবে তুলে ধরব। এ পুরস্কার কোনও অর্থের পুরস্কার নয়, মর্যাদার পুরস্কার। বইটি কালোত্তীর্ণ হতে পারে এমন সম্ভাব্য আশাবাদ  তুলে ধরাটাই হবে আমাদের মূল লক্ষ্য।

শব্দঘর-এর এ সংখ্যাটি আমরা উৎসর্গ করেছি প্রয়াত কথাসাহিত্যিক রাবেয়া খাতুন ও কবি মনজুরে মওলাকে। তাঁদের প্রয়াণে শব্দঘর-পরিবার শোকাহত।

সবার সহযোগিতা সঙ্গে নিয়ে আমরা অগ্রসর হতে চাই। জটিল এবং সংকটকালীন সময়ের পথ পেরোতে চাই। আশা করি, দুঃসময়েও সবাই পাশে থাকবেন।

ধারাবাহিক রচনা ইমদাদুল হক মিলনের ‘যে জীবন আমার ছিল’ বিশেষ কারণে এ-সংখ্যায় প্রকাশিত হলো না। পরবর্তী সংখ্যা থেকে নিয়মিত প্রকাশিত হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

shares